• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শীর্ষ সংবাদ
জেন্ডার সংবেদনশীল প্রতিবেদনে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের পুরস্কার পেলেন ৩ সাংবাদিক এক্সরে রেজিস্ট্রারের হাতের লেখা স্পষ্ট করতে বললেন ঔষধাগারের পরিচালক রাজশাহীতে নাগরিক সমস্যা সমাধানে মাল্টি-পার্টি এ্যাডভোকেসি ফোরামের গোলটেবিল বৈঠক সংসদে অংশগ্রহণ বৃদ্ধিতে নারী এমপিদের বিশেষ আইন প্রণয়নের আহ্বান প্রশ্ন শুনেই রেগে বেফাঁস মন্তব্য, সাংবাদিকদের তোপের মুখে রাজশাহী-১ আসনের এমপি ফারুক চৌধুরী  রাজশাহীর পবায় ফারুক, মোহনপুরে আফজাল হলেন উপজেলা চেয়ারম্যান রাজশাহীতে শ্বশুরবাড়ি থেকে ১০ আগ্নেয়াস্ত্রসহ জামাই গ্রেফতার দেশে কোন রাজনৈতিক মামলা হয় না: অ্যাটর্নি জেনারেল ইউপি চেয়ারম্যান থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান হলেন বেলাল উদ্দিন সোহেল রাজশাহীর তানোরে ময়না, গোদাগাড়িতে সোহেল চেয়ারম্যান নির্বাচিত

নতুন লুকে জেমস

Reporter Name / ৮৪ Time View
Update : শনিবার, ১৩ মার্চ, ২০২১

আরবিসি ডেস্ক : জেমস তখন কণ্ঠ আর গিটারের সুরের মূর্ছনায় মাতিয়ে যাচ্ছেন স্টেজ। মাঠজুড়ে হইহই কাণ্ড রইরই ব্যাপার! বহুদিন পর প্রিয় রক তারকার গান উপভোগ করছেন সবাই। হঠাৎ নিরাপত্তা বেষ্টনী টপকে একটি মেয়ে স্টেজে উঠে ছুঁয়ে ফেলেন প্রিয় গায়ককে। তার এমন কাণ্ড মাঠে উপস্থিত দর্শকদেরও দেয় বাড়তি বিনোদন। মনে মনে হয়তো সবাই ভাবছিলেন ইশ, আমিও যদি এভাবে জেমস গুরুর পা ছুঁয়ে সালাম করতে পারতাম!

তবে গানে গানে নগরবাউল দারুণভাবেই ছুঁয়ে গেছেন সবাইকে। ভাসিয়েছেন বুনো উল্লাসে। করোনাকাল পেরিয়ে প্রায় এক বছর পর এদিন খোলা মাঠে কণ্ঠ ছাড়েন উপমহাদেশের জনপ্রিয় এই তারকা। রাজধানীর মিরপুর-১৪ নম্বরে অবস্থিত পিএসসি কনভেনশন হলে এই আয়োজন করে ২০০১ সালে এসএসসি পাস করা শিক্ষার্থীদের সংগঠন ‘ক্লাসরুম’। ২০০১ সালে এসএসসি পাস করা ছাত্রছাত্রীরা স্কুলের গণ্ডি পেরোনোর ২০ বছর পূর্তিতে ফুর্তি করেছেন জেমসের গানে, গিটারে।
চলছে জেমসের গিটারের গর্জন, ছবি : ঢাকা পোস্ট

রাত ঠিক পৌনে ৯টায় স্টেজে ওঠেন জেমস। শুরুতেই ভক্তদের নতুন লুকে চমকে দেন! গোঁফ রেখেছেন তিনি। তার এই লুক দেখে মাঠে ভক্তদের ফিসফিসাফিস ফিস-‘গোঁফে তো গুরুকে সেই রকম লাগছে।’ এরই মধ্যে ‘হ্যালো’ বলে আওয়াজ তুলে মাঠের ‘ক্লাসরুম’কে জাগিয়ে তোলেন জেমস।

শুরু করেন নিজের তুমুল জনপ্রিয় গান ‘লেইস ফিতা লেইস’ দিয়ে। গানটি শেষ হতেই ‘লাভিউ’ বলে গর্জন তোলেন। এরপর একে একে গাইতে থাকেন ‘সুন্দরীতমা’, ‘গুরু ঘর বানাইলা কী দিয়া’, ‘চালচালে’, ‘সুলতানা বিবিয়ানা’ এবং ‘মা’।

এরপর যখন বলে ওঠেন, ‘মাঠে কি আজ দুষ্ট ছেলের দল আছে?’ তখন আর কারও বুঝতে বাকি রইল না এবার তিনি ‘দুষ্ট ছেলের দল’ গেয়ে ঝড় তুলবেন! গানটি শেষে, ‘শাবাশ বাংলাদেশ’ বলে চিৎকার দেন জেমস। এরপর দরাজ কণ্ঠে ধরেন ‘দুঃখিনী দুঃখ করো না’। জেমসের গাওয়া এক ডজন গানের শেষ চারটি ছিল ‘মিরা ভাই’, ‘বিজলী’ ‘পাগলা হাওয়া’ এবং ‘ভিগিভিগি’। পরিবেশনা শেষে জেমস যখন স্টেজ ছাড়ছিলেন মাঠজুড়ে তখন একটাই আওয়াজ-‘গুরু, গুরু গুরু’।

আরবিসি/১৩ মার্চ/ রোজি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category